শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

শিরোনাম

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের ভাবমূর্তি কোনভাবে ক্ষুন্ন হতে দেয়া যাবে না

রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২২

প্রিন্ট করুন

চট্টগ্রাম: সব ধর্মের সম্মিলিত সহযোগে বাংলাদেশ অর্জিত হয়েছে উল্লেখ করে চট্টগ্রাম সিটি আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দীন চৌধুরী বলেছেন, ‘বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার ভিত্তি হচ্ছে অসাম্প্রদায়িক চেতনা। এ চেতনাকে আমরা কিছুতেই হরণ করতে দেব না। শেখ হাসিনা একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সংকল্পবদ্ধ।’

রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকালে চট্টগ্রাম থিয়েটার ইনস্টিটিউট (টিআইসি) মিলনায়তনে চট্টগ্রাম সিটি আওয়ামী লীগের সাথে চট্টগ্রাম মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের নেতাদের মত বিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।’

মাহতাব উদ্দিন আরো বলেন, ‘চারিদিকে নানা ধরনের সামাজিক অস্থিরতার অপচেষ্টা হচ্ছে। এ অপচেষ্টাগুলো কারা করছে, তাদেরকে চিহ্নিত করে প্রতিহত করতে হবে। আমি আশা করি, বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দূর্গোৎসব শান্তি ও সম্প্রীতিময় পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবে। এ ক্ষেত্রে কোন ব্যত্যয় ঘটলে আওয়ামী লীগ পরিবারের প্রতিটি সদস্যকে মাঠে থাকার নির্দেশনা দিচ্ছি।’

সভায় চট্টগ্রাম সিটি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ‘বাঙালিদের জন্ম অসাম্প্রদায়িক চেতনায়। এ দেশে ধর্ম যার যার উৎসব ও রাষ্ট্র সবার। তবে দুঃখজনক ব্যাপার হল- এমন কিছু ঘটনা ঘটে যায়, যাতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মাঝে মান অভিমান ও অসন্তোষ জন্ম নেয়। এ অবাঞ্চিত ঘটনাগুলো যারা ঘটায়, তারা বাংলাদেশ চায় না। আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে এমন কিছু ঘটনা যদি ঘটে, তাহলে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সেসব অশুভ শক্তিকে আমরা যে কোন কিছুর বিনিময়ে সমূলে উৎখাত করব- এটাই আমাদের প্রত্যয়।’

তিনি পূজা উদযাপন পরিষদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আপনারা ধর্মীয় মর্যাদায় শারদীয় দূর্গোৎসব পালনে যে আয়োজনগুলো করেছেন, তাতে প্রশাসনের সহযোগিতার পাশাপাশি চট্টগ্রা সিটি আওয়ামী লীগের যা কিছু করণীয়, তার একটি নির্দেশনা থানা ওয়ার্ড পর্যায়ে আমরা চিঠি দিয়ে অবহিত করব।’

সভায় পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি আশীষ কুমার ভট্টাচার্য ও সাধারণ সম্পাদক হিল্লোল সেন উজ্জ্বলের প্রস্তাবনা বিবেচনায় আ জ ম নাছির উদ্দীন বারেক বিল্ডিং হতে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত পর্যন্ত রাস্তাটি সাময়িকভাবে চলাচল উপযোগী করার জন্য চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানান।

একই সাথে তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রাম সিটির আওতাধীন প্রতিটি পূজা মন্ডপ এলাকাসহ সিটির প্রতিটি অঞ্চলে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ ও পানি সরবরাহ ও ট্রাফিক সহনীয় পর্যায়ে শৃঙ্খলে আনয়নে পদক্ষেপ গ্রহণ ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম, চট্টগ্রামের পুলিশ প্রশাসনকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে প্রতিটি পূজা মন্ডপে চট্টগ্রাম সিটি আওয়ামী লীগ গৃহীত সিদ্ধান্ত ও নির্দেশনাগুলো অবহিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। পূজা মন্ডপ পরিচালনাকারীরা এর আলোকে তাদের শৃঙ্খলা ব্যবস্থা পরিচালিত করবেন। পূজা উদ্যাপন পরিষদের প্রস্তাবনা অনুযায়ী, এবারের শারদীয় দুর্গোৎসবে প্রতি মন্ডপে উচ্চস্বরে মাইক ব্যবহার সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করা হয়, শুধুমাত্র লো স্পিকারের মাধ্যমে যাবতীয় অনুষ্ঠানাদী সম্পন্ন করাসহ মোট ২১টি প্রস্তাবনা দিয়েছি।’

সভায় বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম সিটি আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নঈম উদ্দীন চৌধুরী, খোরশেদ আলম সুজন, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, শফিকুল ইসলাম ফারুক, হাসান মাহমুদ শমসের, শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, আবু তাহের, শহীদুল আলম, নির্বাহী সদস্য পেয়ার মোহাম্মদ, আব্দুল লতিফ টিপু, বেলাল আহমদ, পুজা উদযাপন পরিষদ মহানগরের সাবেক সভাপতি বিমল কান্তি দে, অরবিন্দু পাল অরুপ, চন্দন তালুকদার, সাধন ধর, সহ সভাপতি অর্পন ব্যানার্জী, রানা বিশ্বাস, সুমন দেবনাথ, প্রদীপ শীল, বিপ্লব কুমার চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব সেন, সজল দত্ত, মিথুন মল্লিক, নটু চৌধুরী, বন্দর থানার সভাপতি অশোক দত্ত, কোতোয়ালী থানার সভাপতি লিটন কুমার শীল, বায়েজিদ থানার সভাপতি উজ্জ্বল কুমার দেওয়ানজী, ডবলমুরিং থানার সভাপতি শিবু প্রসাদ চৌধুরী, আকবর শাহ থানার সভাপতি দিপক দাশ, চান্দগাঁও থানার সভাপতি নিউটন কুমার মজুমদার, পতেঙ্গা থানার সভাপতি সৈকত মহাজন সাজু, সদরঘাটা থানার সভাপতি রাজিব নন্দী বাবু, বাকলিয়া থানার রাহুল মিত্র বাপ্পা, ইপিজেড থানার সাধারণ সম্পাদক সুজন কুমার শীল, খুলশী থানার সভাপতি দেবাশীষ মজুমদার, সদরঘাট থানার পিন্টু কুমার সরকার, কোতোয়ালী থানার তারন দাশ প্রলয় উপস্থিত ছিলেন।