সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪

শিরোনাম

ইউনূসের কর্মকাণ্ড পর্যালোচনা করতে পিটার হাসকে পত্র বাংলাদেশি-আমেরিকানদের প্ল্যাটফর্মের

সোমবার, জুলাই ৮, ২০২৪

প্রিন্ট করুন

ঢাকা: মুহাম্মদ ইউনূসকে ঘিরে আইনি জটিলতা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাসকে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশি-আমেরিকানদের অলাভজনক প্ল্যাটফর্ম কমিটি ফর এ ডেমোক্রেটিক বাংলাদেশ। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ইউনূসের কর্মচারীরা বেআইনিভাবে বকেয়া অর্থ আটকে রাখার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

চিঠিতে বলা হয়, ‘নিম্ন আদালত দেখেছে ইউনূস নিজের করও পরিশোধ করছেন না। তিনি দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে ইউনূস এখনো তার পরিণতির জন্য শেখ হাসিনাকে দোষারোপ করেন।’

প্ল্যাটফর্মটি যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতকে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে তাদের মতামত উপস্থাপনের জন্য অনুরোধ করেছে। সিনেটর হিলারি ক্লিনটন, প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের পলিটিক্যাল ডেস্ককেও এ বার্তা পাঠানো হয়েছে।

চিঠিতে দাবি করা হয়, ইউনূস প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমর্থনের সুবিধাভোগী। এতে উল্লেখ করা হয়, তার ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচি, গ্রামীণ ফোন ও গ্রামীণ ব্যাংকের মত অন্যান্য উদ্যোগের লাইসেন্স প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার দিয়েছে। এর প্রাথমিক মূলধনের জন্য ৫০০ কোটি টাকাও দিয়েছে।

কমিটি ফর এ ডেমোক্রেটিক বাংলাদেশের প্লাটফর্মটির পক্ষে চিঠিতে আহ্বায়ক খালিদ হাসান লিখেছেন, ‘আমি মনে করি, ইউনূসের অত্যধিক শক্তিশালী আমেরিকান লবি দেখে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট অভিভূত হয়েছিলেন। আমি মনে করি, যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ইউনূসের নিয়ন্ত্রণাধীন সব উদ্যোগের জাতিসংঘের নিরীক্ষা চাওয়া উচিত। শেখ হাসিনাকে খুনের ৪৩টি প্রচেষ্টার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র ও সিআইএকে অবশ্যই জানতে হবে।’

চিঠিতে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে খুনের উদ্দেশ্যে চালানো গ্রেনেড হামলার কথাও উল্লেখ করা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, ‘বিএনপির নেতা তারেক রহমান বিএনপি সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে সাথে নিয়ে আন্দোলন পরবর্তী আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সংগঠকদের সমাবেশে নৃশংস গ্রেনেড হামলার ষড়যন্ত্র ও বাস্তবায়ন করেছেন। শেখ হাসিনা অলৌকিকভাবে রক্ষা পেয়েছেন। ওই হামলায় আওয়ামী লীগের প্রথম সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমানসহ ৩১ জন নিহত হন। বেঁচে যাওয়া বেশিরভাগই গ্রেনেডের স্প্লিন্টারের আঘাতে আহত হয়েছেন। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বকে নিশ্চিহ্ন করতেই এ হামলা চালানো হয়েছিল।’

চিঠিতে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের পক্ষ থেকে পদক্ষেপের অভাব ও হামলার ব্যাপারে শান্তিতে নোবেল জয়ী ইউনূসের নীরবতার সমালোচনা করা হয়।

চিঠিতে বলা হয়, ‘দুঃখজনকভাবে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। তারা বিএনপি সরকারের পদত্যাগ চায়নি। বিস্ময়কর ছিল ইউনূসের নীরবতাও। তিনি গ্রেনেড হামলা চালিয়ে খুনের নিন্দা করেননি, নিহতের পরিবার বা দলকেও সান্ত্বনা দেননি।’

কমিটি জোর দিয়ে বলেছে, ‘জাতীয় উন্নয়ন ও আইনি সংস্কারের জন্য শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বহাল রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটি ২০০ বছর পূর্বে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধের সাথে তুলনাযোগ্য।’

চিঠির শেষ অংশে বলা হয়, ‘বাংলাদেশকে অবশ্যই তার ‘মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ’ প্রকাশ করতে হবে এবং ইসলামী মৌলবাদী ও সন্ত্রাসীদের লাগাম টেনে ধরতে হবে। শেখ হাসিনা আন্তরিকভাবে এ নীতি অনুসরণ করছেন। আমাদের অবশ্যই তাকে নির্বিঘ্নে কাজ করতে দেয়া উচিত।’