রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪

শিরোনাম

জলবায়ু ও পরিবেশবান্ধব বিনিয়োগ প্রশিক্ষণ নিলেন সিলেটের ৩০ ব্যাংক কর্মকর্তা

বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৮, ২০২২

প্রিন্ট করুন

সিলেট: বেসরকারি খাতের জলবায়ু ও পরিবেশ-বান্ধব বিনিয়োগের কার্যকরী ব্যবহারে ব্যাংক কর্মকর্তারা যেন আরো সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারেন, এ জন্য ৩০ জন ব্যাংক কর্মকর্তার অংশগ্রহণে সিলেটে টেকসই অর্থায়ন নিয়ে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি সম্পন্ন হয়েছে।

সিলেটের রোজভিউ হোটেলে ‘সাসটেইনেবল ফাইন্যান্স ফর সাসটেইনেবিলিটি: চ্যালেঞ্জেস অ্যান্ড অপরচুনিটিস’ শীর্ষক এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচি যৌথভাবে আয়োজন করে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাস্টেইনেবল ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্ট (এসএফডি) ও জিআইজেড বাংলাদেশ। জার্মান ফেডারেল সরকারের পক্ষে জিআইজেড বাংলাদেশ কর্তৃক বাস্তবায়িত ইন্টারন্যাশনাল ক্লাইমেট ফাইন্যান্স (আইসিআইসিএফ) প্রকল্পের উন্নত সমন্বয়ের মাধ্যমে এসএফডির সাথে যুক্ত হয়ে দেশের আটটি বিভাগের মধ্যে পাঁচটিতে টেকসই অর্থায়নের ওপর ধারাবাহিকভাবে এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

পরে সিলেটের রোজভিউ হোটেলে সংশ্লিষ্ট অঞ্চল থেকে টেকসই অর্থায়ন ও বিনিয়োগে আগ্রহী ৫০ জনেরও বেশি ব্যবসায়িক নেতা ও উদ্যোক্তাদের নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে একটি কর্মসূচি আয়োজন করা হয়। ‘সাসটেইনেবল ফাইন্যান্স ফর সাসটেইনেবিলিটি: চ্যালেঞ্জেস অ্যান্ড অপরচুনিটিস ফর দ্য প্রাইভেট সেক্টর’ শীর্ষক এ উদ্যোগে ব্যাংক কর্মকর্তা ও বেসরকারি খাতের অংশগ্রহণকারীরা কীভাবে টেকসই ব্যবসায় ও উদ্যোগের জন্য স্বল্প খরচের ফান্ডিং বা তহবিল সংগ্রহের পন্থাগুলো সহজে অনুসরণ করতে পারেন, সে বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সাথে বিস্তারিত আলোচনায় অংশ নেন অংশগ্রহণকারীরা।

অনুষ্ঠানে প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাস্টেইনেবল ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের পরিচালক খন্দকার মোর্শেদ মিল্লাত। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের স্বাগত জানান আইসিআইসিএফ প্রজেক্ট জিআইজেড বাংলাদেশের প্রধান উপদেষ্টা ফেরদাউস আরা হোসেন।
প্রশিক্ষণের কারিগরি অংশ পরিচালনা করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাস্টেইনেবল ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের অতিরিক্ত পরিচালক অমিতাভ চক্রবর্তী, যুগ্ন পরিচালক দেলোয়ার হোসেন ও উপ-পরিচালক মো. আরিফুল কবির।

বক্তাদের আলোচনায় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র, যেমন টেকসই আর্থিক প্রতিবেদন, টেকসই অর্থায়ন প্রস্তাবের স্ক্রিনিং, গ্রিন রিফাইন্যান্স (পরিবেশবান্ধব পুনঃঅর্থায়ন) পদ্ধতিসমূহ, পুনঃঅর্থায়ন পণ্যের ব্যবহার, বাংলাদেশ ব্যাংক প্রদত্ত টেকসই অর্থায়ন ও সবুজ বিনিয়োগের জন্য স্বল্প খরচে তহবিলসমূহ প্রভৃতি উঠে আসে। প্রশিক্ষণটি পরিচালনা করেন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) অধ্যাপক এসএম আহসান হাবীব।

খন্দকার মোর্শেদ মিল্লাত তার বক্তব্যে বলেন, ‘আমাদের সামনে টেকসই বিনিয়োগের কোন বিকল্প নেই। সামনের বছরগুলোতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের জন্য টেকসই বিনিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা আরো বৃদ্ধি পাবে।’

তিনি অংশগ্রহণকারীদের জন্য টেকসই আর্থিক নীতির ওপর একটি ট্রেনিং সেশনও পরিচালনা করেন।

উদ্বোধনী বক্তৃতায় ফেরদৌস দেশে জলবায়ু পরিবর্তনের ক্রমবর্ধমান প্রভাবের কারণে বহিরাগত উৎস থেকে অতিরিক্ত জলবায়ু অর্থায়নের সুযোগ সৃষ্টির ওপর জোর দেন। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব প্রশমনে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ সম্পদ অর্থের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটানোর জন্য যথেষ্ট নয়। সুতরাং, আন্তর্জাতিক অর্থায়নের সুযোগ সৃষ্টি করার জন্য অংশীজনদের সক্ষমতা বাড়ানো দরকার।

প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীদের হাতে সনদপত্র তুলে দেন বাংলাদেশ ব্যাংক সিলেট কার্যালয়ের নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ মামুনুল হক। তিনি সিলেটের গ্রাহকদের মাঝে টেকসই অর্থায়নকে আরো পরিচিত করে তোলার লক্ষ্যে ব্যাংকারদের উৎসাহিত করেন ও সিলেটের ব্যাংকারদের জন্য ভবিষ্যতে এ ধরণের প্রশিক্ষণ আয়োজনের গুরুত্ব তুলে ধরেন।

ইম্প্রুভড কোওর্ডিনেশন অফ ইন্টারন্যাশনাল ক্লাইমেট ফাইন্যান্স (আইসিআইসিএফ) প্রকল্পের মাধ্যমে জিআইজেড, বাংলাদেশ সরকারের সাথে জলবায়ু অর্থায়ন সংগ্রহ ও সমন্বয় সংক্রান্ত সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে।