শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

শিরোনাম

জেল থেকে বেরিয়ে বললেন ফখরুল ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন চলবে’

বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ১৫, ২০২৪

প্রিন্ট করুন

ঢাকা: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘বিজয় না হওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশের জনগণ গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও ভোটাধিকারের জন্য শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যাবে।

বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) বিকালে কারাগার থেকে বের হওয়ার পরপরই তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘জনগণের বিজয় অর্জন না হওয়া পর্যন্ত আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যাব।’

বিএনপির এ নেতা দাবি করেন, ৭ জানুয়ারি একতরফা নির্বাচন করে সরকার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিনি বলেন, ‘বিএনপির কোন ক্ষতি হয়নি, আন্দোলনেরও ক্ষতি হয়নি। ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।’

ফখরুল বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ সব সময় গণতন্ত্র ও ভোটাধিকারের জন্য সংগ্রাম করেছে, সংগ্রাম করেছে। ‘ইনশাল্লাহ এই লড়াইয়ে তারা (জনগণ) জয়ী হবেই।’

এর পূর্বে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে গ্রেফতার হয়ে সাড়ে তিন মাস আটক থাকার পর জামিনে মুক্তি পান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

মিডিয়া সেলের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, জামিনের আদেশ কেরাণীগঞ্জের কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছানোর পর বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) বিকাল তিনটা ৩৫ মিনিটে তারা কেরাণীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান।

জেলগেটে তাদের স্বাগত জানান দলের নেতাকর্মী ও দলের শীর্ষ দুই নেতার স্বজনরা।

ফখরুল ও খসরু কারা গেটে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

আমীর খসরু বলেন, ‘ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে ক্ষমতা দখল করেছে। কিন্তু বাংলাদেশের জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে। নির্বাচনে তারা জনগণের কাছে নৈতিকভাবে পরাজিত হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। গণতন্ত্র ও জনগণের দ্বারা নির্বাচিত সরকার ফিরে না পাওয়া পর্যন্ত এটা অব্যাহত থাকবে।’

বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করে বাংলাদেশের জনগণ গণতন্ত্রের পক্ষে রায় দিয়েছে।’

নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার বিএনপির নেতাকর্মীদের কারাগারে পাঠিয়েছে বলে অভিযোগ করে আমীর খসরু বলেন, ‘রাজপথে সরকারবিরোধী আন্দোলন পরিচালনার জন্য বিএনপিসহ সব গণতন্ত্রপন্থী দলের মনোবল যথেষ্ট শক্তিশালী।’

এর পূর্বে, বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার একটি আদালত গেল বছরের ২৮ অক্টোবর বিএনপির সমাবেশ চলার সময় প্রধান বিচারপতির বাসভবন ভাঙচুরের মামলায় মির্জা ফখরুল ও খসরুকে জামিন দেন আদালত।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক ফয়সাল আতিক বিন কাদের আবেদনের শুনানি শেষে জামিন মঞ্জুর করেন।

গেল ২৯ অক্টোবর ফখরুল, খসরুসহ বিএনপির ৫৯ নেতাকর্মীকে আসামি করে মামলা করে পুলিশ।

সমাবেশে সহিংসতার ঘটনায় ফখরুলের বিরুদ্ধে ১১টি ও খসরুর বিরুদ্ধে দশটি মামলা হয়। গেল ২৯ অক্টোবর ফখরুল ও ৩ নভেম্বর গুলশানের বাসা থেকে খসরুকে আটক করে পুলিশ। দীর্ঘ আইনি লড়াইয়ের পর তাদের বিরুদ্ধে দায়ের করা সব মামলায় আদালত থেকে জামিন পেয়ে তাদের মুক্তির পথ সুগম হয়।