শনিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২৩

শিরোনাম

ঢাকায় অনুষ্ঠিত হল যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয়ের সবচেয়ে বড় মেলা

রবিবার, সেপ্টেম্বর ১০, ২০২৩

প্রিন্ট করুন

ঢাকা: পুরো পৃথিবীতে পড়াশোনার জন্য শিক্ষার্থীদের প্রথম পছন্দের দেশ হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। সে বিবেচনায় রেখে বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্র আয়োজিত সবচেয়ে বড় বিশ্ববিদ্যালয় মেলায় অংশ নিয়েছে দেশটির ৩১টি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়। হোটেল শেরাটনে শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের আয়োজনে এ মেলায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ঢল নামে। মেলায় অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বুথ ঘুরে ঘুরে তথ্য সংগ্রহ করেন।

মেলায় শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্কুল কাউন্সেলররা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভর্তি কর্মকর্তাদের সাথে মুখোমুখি আলাপ করারও সুযোগ পান।

এছাড়া, দর্শনার্থীরা যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কর্মকর্তা এবং অ্যাডুকেশন ইউএসএ উপদেষ্টাদের পরিচালনায় যুক্তরাষ্ট্রে উচ্চ শিক্ষার আবেদন প্রক্রিয়া জানতে সেশনে অংশ নেন। আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য শীর্ষ গন্তব্য যুক্তরাষ্ট্র, ২০২১-২২ শিক্ষা বর্ষে ২০০টিরও বেশি দেশের নয় লাখ ৪৮ হাজার ৫১৯ জনের বেশি আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীকে স্বাগত জানিয়েছে দেশটি।

মেলার উদ্বোধন করেন যুক্তরাষ্ট্রের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স নেথান ডি. ফ্লুক। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাম্পাসগুলোতে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের ধারাবাহিক সাফল্যের কথা তুলে ধরেন। দুই দেশের মধ্যে গতিশীল শিক্ষার্থী, গবেষক, স্কলার ও শিক্ষাবিদ বিনিময় এবং আন্তর্জাতিক শিক্ষা প্রচেষ্টার প্রশংসা করেন তিনি।

নেথান ডি. ফ্লুক বলেন, ‘প্রতি বছর এ দেশের শিক্ষার্থীদের যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে যাওয়ার আগ্রহ বাড়ছে। ফলে, বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে শিক্ষার্থী পাঠানো শীর্ষ ২০ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ ১৩তম।’ এ ব্যাপারে আলোকপাত করেন তিনি।

বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের ‘অ্যাডুকেশন ইউএসএ’ প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে বাংলাদেশে আয়োজিত ২০২৩- শরৎকালীন সবচেয়ে বড় যুক্তরাষ্ট্র বিশ্ববিদ্যালয় মেলা।

যুক্তরাষ্ট্রের যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রতিনিধিরা মেলায় অংশগ্রহণ করেছিলেন, সেগুলো হল ক্যানেসিয়াস বিশ্ববিদ্যালয়, ক্যাসকাডিয়া কলেজ, ড্রেক্সেল বিশ্ববিদ্যালয়, অ্যাম্পোরিয়া স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়, ইন্ডিয়ানা বিশ্ববিদ্যালয়-পাড়ডু বিশ্ববিদ্যালয় ইন্ডিয়ানাপলিস, আইওয়া স্টেট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিশ্ববিদ্যালয়, জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়, লুইসিয়ানা টেক বিশ্ববিদ্যালয়, মার্সি বিশ্ববিদ্যালয়, নর্থ ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়, নোভা সাউথ ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়, ওল্ড ডোমিনিয়ন বিশ্ববিদ্যালয়, প্যাসিফিক ওকস কলেজ, সিয়াটেল সেন্ট্রাল কমিউনিটি কলেজ, আলব্যানির স্টেট ইউনিভার্সিটি অফ নিউ ইয়র্ক, বাফেলোর স্টেট ইউনিভার্সিটি অফ নিউ ইয়র্ক, শিকাগো স্কুল অফ প্রফেশনাল সাইকোলজি, ট্রাইন বিশ্ববিদ্যালয়, ট্রয় বিশ্ববিদ্যালয়, সিনসিনাটি বিশ্ববিদ্যালয়, বোল্ডারে কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়, ম্যাসাচুসেটস বিশ্ববিদ্যালয় – লোয়েল, মিশিগান ফ্লিন্ট বিশ্ববিদ্যালয়, মিসৌরি বিশ্ববিদ্যালয় – কলাম্বিয়া, হ্যাভন বিশ্ববিদ্যালয়, ওরিগন বিশ্ববিদ্যালয়, ইউটাহ বিশ্ববিদ্যালয়, উইসকনসিন বিশ্ববিদ্যালয় -মিলওয়াকি, ভার্জিনিয়া কমনওয়েলথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইয়ংস্টাউন স্টেট বিশ্ববিদ্যালয় ও ওয়েইন স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ‘আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা চার হাজারের বেশি স্বীকৃত কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে আমেরিকানদের সাথে নিরবিচ্ছিন্ন সংযোগ স্থাপন করে। যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশোনার সুযোগ জীবন বদলে দেয়। যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংখ্যক আমেরিকান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে আনতে পেরে গর্বিত।’

অ্যাডুকেশন ইউএসএ’ হল যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অব স্টেটের বৈশ্বিক নেটওয়ার্ক। এর আওতায় ১৭৮টি দেশে ৪২৫টিরও বেশি আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী পরামর্শ কেন্দ্র রয়েছে। ‘অ্যাডুকেশন ইউএসএ’ নেটওয়ার্ক যুক্তরাষ্ট্রে স্বীকৃত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ার সুযোগ নিয়ে বিনামূল্যে তথ্য দেয়; যার মাধ্যমে পুরো পৃথিবীর শিক্ষার্থীদের কাছে যুক্তরাষ্ট্র উচ্চ শিক্ষার প্রচার করে।