বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

শিরোনাম

তাইওয়ানের সাথে বাণিজ্য আলোচনার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের

বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৮, ২০২২

প্রিন্ট করুন

ডেস্ক রিপোর্ট: মার্কিন সরকার বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) তাইওয়ানের সাথে বাণিজ্য আলোচনার ঘোষণা দিয়েছে। দ্বীপ গণতন্ত্রের প্রতি সমর্থনের চিহ্ন হিসাবে চীন তার নিজস্ব এলাকা বলে দাবি করে, বেইজিং একটি সতর্কতা জারি করে যে, এটি ‘তার সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য’ প্রয়োজনে পদক্ষেপ নেবে।

মার্কিন হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি এ মাসে ২৫ বছরের মধ্যে দ্বীপটি পরিদর্শনকারী সর্বোচ্চ পদমর্যাদার আমেরিকান কর্মকর্তা হওয়ার পরে বেইজিং তাইওয়ানকে ভয় দেখানোর জন্য সমুদ্রে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করার পরে এ ঘোষণা আসে।

তাইওয়ানের বৈদেশিক সম্পর্কের অধিকার নেই বলে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সরকার পরিকল্পিত আলোচনার সমালোচনা করেছে। এটি ওয়াশিংটনকে সতর্ক করেছিল যে, দ্বীপটিকে তার প্রকৃত স্বাধীনতাকে স্থায়ী করার চেষ্টা করতে উৎসাহিত করবে না, একটি পদক্ষেপ বেইজিং বলে যে যুদ্ধের দিকে নিয়ে যাবে।

‘চীন দৃঢ়ভাবে এর বিরোধিতা করে।’ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র শু জুয়েটিং বলেছেন। তিনি ওয়াশিংটনকে ‘চীনের মূল স্বার্থকে পুরোপুরি সম্মান করার আহবান জানিয়েছেন

এ ছাড়াও বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) তাইওয়ানের সামরিক বাহিনী চীনা ক্ষেপণাস্ত্র হামলার জবাবে ক্ষেপণাস্ত্র ও কামান দিয়ে একটি মহড়া করেছে।

তাইওয়ান ও চীন ১৯৪৯ সালে একটি গৃহযুদ্ধের পরে বিভক্ত হয় ও তাদের মধ্যে কোন আনুষ্ঠানিক সম্পর্ক নেই। তবে বিলিয়ন ডলার বাণিজ্য ও বিনিয়োগের দ্বারা আবদ্ধ।

দ্বীপটি কখনই গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের অংশ ছিল না, তবে ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি বলেছে যে, এটি প্রয়োজনে শক্তি প্রয়োগ করে মূল ভূখণ্ডের সাথে একত্রিত হতে বাধ্য।

ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের জন্য রাষ্ট্রপতি জো বাইডেনের সমন্বয়কারী কার্ট ক্যাম্পবেল গত সপ্তাহে বলেছিলেন যে, বাণিজ্য আলোচনা ‘তাইওয়ানের সাথে আমাদের সম্পর্ক গভীর করবে।’ তবে জোর দিয়ে নীতি পরিবর্তন হচ্ছে না। তাইওয়ানের সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোন কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই, এটি তার নবম বৃহত্তম বাণিজ্যিক অংশীদার। তবে ব্যাপক অনানুষ্ঠানিক সম্পর্ক বজায় রাখে।

ইউএস ট্রেড রিপ্রেজেন্টেটিভের ঘোষণা বেইজিংয়ের সাথে উত্তেজনার কোন উল্লেখ করে নি। কিন্তু বলেছে যে ‘আনুষ্ঠানিক আলোচনা’ বাণিজ্য ও নিয়ন্ত্রক সম্পর্ক গড়ে তুলবে, এমন একটি পদক্ষেপ; যা ঘনিষ্ঠ অফিসিয়াল মিথস্ক্রিয়াকে অন্তর্ভুক্ত করবে।

ওয়াশিংটন বলেছে যে, তারা চীন ও তাইওয়ানের অবস্থান নিয়ে কোন অবস্থান নেয় না। তবে তাদের বিরোধ শান্তিপূর্ণভাবে নিষ্পত্তি করতে চায়। মার্কিন সরকার ফেডারেল আইন দ্বারা দায়বদ্ধ যে, দ্বীপটির আত্মরক্ষার উপায় রয়েছে।

‘আমরা শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্য বেইজিংয়ের চলমান প্রচেষ্টাকে দুর্বল করার জন্য ও তাইওয়ানকে সমর্থন করার জন্য শান্ত ও দৃঢ় পদক্ষেপ নিতে থাকব।’ ক্যাম্পবেল গত শুক্রবার (১২ আগস্ট) একটি কনফারেন্সে বলেছিলেন।

চীন যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় তাইওয়ানের রপ্তানির দ্বিগুণেরও বেশি গ্রহণ করে, এর দুই নম্বর বিদেশী বাজার। তাইওয়ানের সরকার বলছে, তাদের কোম্পানিগুলো মূল ভূখণ্ডে প্রায় ২০০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে।

বেইজিং বলছে, ২০২০ সালের আদমশুমারিতে প্রায় এক লাখ ৫৮ হাজার তাইওয়ানি উদ্যোক্তা, পেশাদার ও অন্যরা মূল ভূখণ্ডে বাস করে।

সাইট্রাস, মাছ ও অন্যান্য শত শত তাইওয়ানের খাদ্য পণ্য আমদানির উপর চীনের নিষেধাজ্ঞার ফলে গ্রামীণ অঞ্চলগুলিকে রাষ্ট্রপতি সাই ইং ওয়েনের সমর্থক হিসাবে দেখা যায়। তবে এ পণ্যগুলি মূল ভূখণ্ডে তাইওয়ানের রপ্তানির শুন্য দশমিক পাঁচ শতাংশেরও কম।

বেইজিং এমন কিছুই করে নি, যা তাইওয়ান থেকে প্রসেসর চিপগুলির প্রবাহকে প্রভাবিত করতে পারে। যা বিশ্বের স্মার্টফোন ও ভোক্তা ইলেকট্রনিক্স একত্রিত করা চীনা কারখানাগুলির জন্য প্রয়োজন। দ্বীপটি বিশ্বের বৃহত্তম চিপ সরবরাহকারী।

ম্যাসাচুসেটস থেকে ডেমোক্র্যাট সেন এড মার্কির নেতৃত্বে মার্কিন আইন প্রণেতাদের একটি দ্বিতীয় দল রোববার (১৪ আগগস্ট) তাইওয়ানে পৌঁছেছে ও সাই ইং ওয়েনের সাথে দেখা করেছে। তাদের আগমনের পর বেইজিং দ্বিতীয় দফা সামরিক মহড়ার ঘোষণা দিয়েছে।

২৩ দশমিক ছয় মিলিয়ন জনসংখ্যা নিয়ে তাইওয়ান প্রতিক্রিয়া হিসাবে নিজস্ব সামরিক মহড়া শুরু করেছে। বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) পূর্ব উপকূলে হুয়ালিয়েন বিমান ঘাঁটিতে অনুশীলনগুলি চীনা ক্ষেপণাস্ত্র হামলার প্রতিক্রিয়ার অনুকরণ করেছিল।

সামরিক কর্মীরা তাইওয়ানের তৈরি স্কাই বো তিন অ্যান্টি-এয়ারক্রাফ্ট মিসাইল ও ৩৫ মিমি অ্যান্টি-এয়ারক্রাফ্ট কামান নিয়ে অনুশীলন করেছিল। কিন্তু সেগুলি ছুঁড়ে নি।

‘আমরা আতঙ্কিত হই নি।’ যখন চীন সামরিক মহড়া শুরু করেছে, বিমান বাহিনীর মেজর চেন তেহ-হুয়ান বলেছেন।

‘আমাদের স্বাভাবিক প্রশিক্ষণ হল ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের প্রস্তুতির জন্য দিনে ২৪ ঘন্টা কল করা,’ চেন বলেছিলেন। ‘আমরা প্রস্তুত ছিলাম।’

ইউএস-তাইওয়ানি আলোচনায় কৃষি, শ্রম, পরিবেশ, ডিজিটাল প্রযুক্তি, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন উদ্যোগের অবস্থা ও ‘বাজার বহির্ভূত নীতিগুলি’ কভার করবে। একই ইস্যুতে ওয়াশিংটন ও বেইজিং তিন বছরের পুরনো শুল্ক যুদ্ধে আবদ্ধ।

এর মধ্যে সরকারী কোম্পানিগুলোর জন্য চীনের সমর্থন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যা তার অনেক শিল্পে আধিপত্য করে ও বেইজিং বিদেশী প্রযুক্তি চুরি করে ও তার বাজার খোলার প্রতিশ্রুতি লঙ্ঘন করে বিভিন্ন ক্ষেত্রের অ্যাক্সেস সীমিত করে।

তৎকালীন-প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৯ সালে চীনা পণ্যের উপর শুল্ক বাড়িয়েছিলেন অভিযোগের জবাবে এর প্রযুক্তি উন্নয়ন কৌশলগুলো তার মুক্ত-বাণিজ্যের প্রতিশ্রুতি লঙ্ঘন করে ও মার্কিন শিল্প নেতৃত্বকে হুমকি দেয়।

জো বাইডেন সেই শুল্ক বৃদ্ধির বেশিরভাগ জায়গায় রেখে দিয়েছেন।