বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

শিরোনাম

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ‘জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল’ উদ্বোধন

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২

প্রিন্ট করুন

আড়াইহাজার, নারায়ণগঞ্জ: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) আওতায় নির্মিত বাংলাদেশ স্পেশাল ইকনমিক জোন (জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল) উদ্বোধন করেছেন। এ সময় আড়াইহাজার প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ- দুই আসনের সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবু, বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের মান্যবর রাষ্ট্রদূত ইতো নাওয়াকি ও জাপানের সুমিতোমো কর্পোরেশনের প্রেসিডেন্ট মাসাযুকি হিয়োদো।

প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে স্পেশাল ইকনমিক জোন স্থাপনের জন্য জাপান সরকারকে ধন্যবাদ জানান। এছাড়াও তিনি পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল, মহেশখালীতে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ ও মাতারবাড়িতে পাওয়ার হাব প্রতিষ্ঠায় জাপান সরকারের সক্রিয় সহযোগিতার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। এসব উন্নয়ন কর্মকাণ্ডকে তিনি জাপান ও বাংলাদেশের ৫০ বছরের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের নিদর্শন বলে অভিহিত করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাপান বরাবরই আমাদের অন্যতম প্রধান উন্নয়ন সহযোগী ও অকৃত্রিম বন্ধু। বাংলাদেশে বিনিয়োগের চমৎকার পরিবেশ রয়েছে ও এখানে বিনিয়োগকারীদের সব ধরনের সুযোগ সুবিধা দেয়া হচ্ছে।’

ভৌগোলিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানের কারণে দক্ষিণ এশিয়া ও ইউরোপসহ পৃথিবীর অন্যান্য অঞ্চলের জন্য বিনিয়োগ কেন্দ্র হিসেবে বাংলাদেশে প্রায় ৩০০ কোটি মানুষের বাজার হতে পারে বলে প্রধানমন্ত্রী জানান।

তিনি উল্লেখ করেন, জিটুজি ভিত্তিতে চাইনিজ ও ভারতীয় অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণে কাজ শুরু হয়েছে এবং সৌদি আরব ও সিংগাপুরের সাথে অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণে আলোচনা চলছে। তিনি আশা প্রকাশ করেন, এসব অর্থনৈতিক অঞ্চল বাস্তবায়িত হলে দেশে বৈদেশিক বিনিয়োগ আরো বৃদ্ধি পাবে ও দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে। তিনি আরো উল্লেখ করেন, জিটুজি অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য প্রয়োজনীয় সব সহযোগিতা দিতে তার সরকার সদা প্রস্তুত রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বন্দর ও নদীকেন্দ্রিক যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়নে বর্তমান সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে; যা বিনিয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় ক্ষেত্র প্রস্তুত করেছে।’ এছাড়াও তিনি উল্লেখ করেন, তরুণ উদ্যোক্তা তৈরিতেও সরকার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করছে। এসব উদ্যোগের কারণে অভ্যন্তরীণ বাজার ব্যবস্থা সম্প্রসারিত হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে; যা অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের মাধ্যমে পরিপূর্ণতা পাবে। তিনি আরো জানান, পরিবেশ বান্ধব শিল্পাঞ্চল করায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

শেখ ইউসুফ হারুন জিটুজি ক্যাটাগরিতে প্রথম অর্থনৈতিক অঞ্চল উদ্বোধন আয়োজনে সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, ‘এ স্বয়ংসম্পূর্ণ অর্থনৈতিক অঞ্চলে আনুমানিক দেড় বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ হবে ও লক্ষাধিক লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।’ তিনি জানান, প্রায় ৩০টি জাপানী ও অন্যান্য দেশের আরো দশটি প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছে। এছাড়া ইতিমধ্যে তুরস্কের সিঙ্গার ও জার্মানীর প্রতিষ্ঠান রুডলফের সাথে বিএসইজেডে শিল্প প্রতিষ্ঠায় চুক্তি সই হয়েছে।

মাসাযুকি হিয়োদো বলেন, ‘বাংলাদেশে বৃহৎ বাজার সৃষ্টির সম্ভাবনা প্রতিনিয়ত বাড়ছে এবং এ কারণে সুমিতোমো অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে।’ তিনি আশা করেন, এটি বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষণে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানের পর দুইটি জাপানি বিনিয়োগকারীর সাথে চুক্তি সই করা হয়। এগুলো হল- ওনদা কর্পোরেশন ও নিক্কা কেমিক্যালস। ওনদা কর্পোরেশন দেশের একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথভাবে গ্যাস মিটার এসেম্বলিং ফ্যাক্টরি প্রতিষ্ঠা করবে। এছাড়া নিক্কা কেমিক্যালস বন্ডেড ওয়্যারহাউজ ও কেমিক্যাল প্ল্যান্ট স্থাপন করবে। ইতিমধ্যে এ অর্থনৈতিক অঞ্চলে শিল্প নির্মাণ কাজ শুরু করেছে তুরস্কের বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান সিংগার, চুক্তি সই হয়েছে জার্মান কোম্পানি রুডলফের সাথে। এছাড়াও, আরো প্রায় বিভিন্ন দেশের ৪০টি প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছে। খুব শিগগিরই বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি সই করা যাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। এ অর্থনৈতিক অঞ্চলে আনুমানিক দেড় বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ ও প্রাথমিকভাবে লক্ষাধিক লোকের কর্মসংস্থান হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণের পথ চলা শুরু হয় প্রধানমন্ত্রীর ২০১৪ সালে জাপান সফরের সময়। একই বছর জাপানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের বাংলাদেশ সফরের সময় বিষয়টি গুরুত্বের সাথে আলোচনা হয়। ২০১৬ সালে জাইকা বাংলাদেশে একটি জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনে সম্ভাব্যতা সমীক্ষার কাজ হাতে নেয় ও একই বছর জাপান সরকার বিশ্ব বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান সুমিতোমো করপোরেশনকে ডেভলপার হিসাবে নিয়োগ করার জন্য সুপারিশ করে। ২০১৮ সালে সম্ভাব্যতা সমীক্ষা শেষে জাইকা নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের পক্ষে মত দেয়। পরবর্তী যৌথ উদ্যোগে জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনে ২০১৯ সালে বেজা ও সুমিতমো করপোরেশনের মধ্যে চুক্তি সই হয়। বেজা ২০১৯ সালে প্রস্তাবিত এলাকায় জমি অধিগ্রহণ ও ভূমি উন্নয়ন কাজ শুরু করে। প্রায় এক হাজার একরের উপর নির্মাণাধীন জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রথম পর্যায়ে ৫০০ একর ভূমি উন্নয়ন কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। পাশাপাশি নির্মাণ করা হয়েছে সংযোগ সড়ক, রিটেনটেশন পন্ড, নিশ্চিত করা হয়েছে বিদ্যুৎ ও পানি সরবরাহ ব্যবস্থা। নির্মাণ শুরু হয়েছে অভ্যন্তরিণ সড়ক, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানি সরবরাহ ব্যবস্থা। এ পর্যন্ত কোম্পানির অনুকূলে ১৮০ একর উন্নত জমি বাংলাদেশ স্পেশাল ইকনমিক জোনকে হস্তান্তর করা হয়েছে ও তা শিল্প কারখানা তৈরির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। অবশিষ্ট জমি খুব তাড়াতাড়ি হস্তান্তর করা হবে।