বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪

শিরোনাম

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে প্রথম বিদেশ সফরে যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছেন স্টারমার

বুধবার, জুলাই ১০, ২০২৪

প্রিন্ট করুন
কিয়ার স্টারমার

লন্ডন, যুক্তরাজ্য: যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী কিয়ার স্টারমার নির্বাচনে ভূমিধস জয়ের পর দায়িত্ব গ্রহণের মাত্র কয়েক দিনের মধ্যে এ সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে যাত্রা করেছেন। বিশ্ব মঞ্চে তার পরিচিত লাভের জন্য প্রথম পদক্ষেপের অংশ হিসেবে এ সফর। সংবাদ এএফপির।

স্টারমার, (৬১) গেল শুক্রবার (৫ জুলাই) ব্রিটিশ নেতা হওয়ার পর তার প্রথম বিদেশ সফরে যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটনে ন্যাটোর ৭৫তম বার্ষিকী শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দেবেন। সম্মেলনে তিনি পশ্চিমা সামরিক জোট ও রাশিয়ার আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ইউক্রেনের লড়াইয়ের জন্য ব্রিটেনের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করবেন।

নির্বাচনে জয়লাভের পর এ সফরটি স্টারমারের আন্তর্জাতিক কূটনীতির অঙ্গনে ঝড় ওঠে। যুক্তরাজ্যও আগামী সপ্তাহে ইউরোপীয় নেতাদের সম্মেলনের আয়োজন করে।

পররাষ্ট্র নীতি বিশেষজ্ঞ জেমস স্ট্রং বলেছেন, ‘তার এ সফর অন্য নেতাদের শেখার ও জানার সুযোগ হবে।’

ব্রিটেনের পূর্ববর্তী রক্ষণশীল সরকার ছিল ইউক্রেনের অন্যতম কট্টর মিত্র। রাশিয়ার আক্রমণ প্রতিহত করার জন্য অর্থ, অস্ত্র ও সেনা প্রশিক্ষণ দিয়েছে।

স্টারমার শ্রমের মাধ্যমে কিয়েভের জন্য অব্যাহত সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ও ন্যাটোর বৈঠকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির কাছে ব্যক্তিগতভাবে সেই বার্তাটি পুনরায় নিশ্চিত করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবারের (৪ জুলাই) নির্বাচনের পর থেকে স্টারমারের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী জন হিলি এরমধ্যেই ইউক্রেন সফর করেছেন ও পররাষ্ট্র মন্ত্রী ডেভিড ল্যামি ইউরোপীয় ন্যাটোর সদস্যদের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন।

শ্রম জোটের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ও রক্ষণশীলদের প্রতিরক্ষা ব্যয় ন্যাটোর লক্ষ্যমাত্রা দুই শতাংশের উপরে জিডিপির আড়াই শতাংশে উন্নীত করার প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে চায়, ।

লন্ডনের কুইন মেরি ইউনিভার্সিটির লেকচারার স্ট্রং বলেছেন, ‘আমরা ‘স্বাভাবিকভাবে ব্যবসায়’ সম্পর্কে বহু আলোচনা আশা করতে পারি।’

যদিও স্টারমার প্রধান বৈদেশিক নীতির বিষয়গুলোর ওপর ধারাবাহিকতার জোর দেবেন। তিনি ব্রেক্সিটের দ্বারা বিপর্যস্ত মিত্রদের সঙ্গে সম্পর্কের পুনঃস্থাপনের ইঙ্গিত দেন।

সফরটি স্টারমারের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলার ও তথাকথিত ইউকে-যুক্তরাষ্ট্র বিশেষ সম্পর্ককে শক্তিশালী করার জন্য একটি প্রাথমিক সুযোগও সৃষ্টি হয়েছে।

স্টারমারের কেন্দ্র-বাম লেবার পার্টি কনজারভেটিভদের চেয়ে বাইডেনের ডেমোক্রেটিক পার্টির সঙ্গে আরো ঘনিষ্ঠভাবে সংযুক্ত। তবে, এ সফরটি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের জন্য একটি স্পর্শকাতর সময়ে আসে।

বাইডেন (৮১) আগামী নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বী ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে অন্য কোন শক্তিশালী ডেমোক্র্যাট প্রার্থীকে বেছে নেয়ার কারণে চাপের মধ্যে রয়েছেন।