মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪

শিরোনাম

ফোবানা সম্মেলনে সন্মান দেওয়া নিয়ে বাবু-রাজুর বিরোধ

সোমবার, সেপ্টেম্বর ১২, ২০২২

প্রিন্ট করুন

নিউইয়র্ক: ফোবানা সম্মেলনে সন্মান দেওয়াকে কেন্দ্র করে বিবাদে জড়ানোর অভিযোগ উঠেছে বিভক্ত ফোবানার এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর শারাফাত হোসেন বাবু ও কালচারাল চেয়ারম্যান শাহাদাত হোসেন রাজুর বিরুদ্ধে। এই নিয়ে প্রবাসি আমেরিকানদের মধ্যে চলছে নানামুখী আলোচনা সমালোচনা। গত রোববার (৪ সেপ্টেম্বর) নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের নবান্ন রেস্টুরেন্টে এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী বেবী নাজনিনসহ উপস্থিত ছিলেন প্রায় ৩০-৪০ জন বাঙালি।

জানা গেছে, শাহাদাত হোসেন রাজু ফোবানা সম্মেলনে ৭ জন শিল্পীকে দাওয়াত দিয়ে অংশগ্রহণের সুযোগ করে দেন। তবে সম্মেলনে তাকে যথার্থ সন্মান দেওয়া হয়নি এমন বিষয়কে কেন্দ্র করে তর্কাতর্কিতে জড়িয়ে পড়েন বাবু ও রাজু।

এ সময় তাদের মধ্যে উচ্চবাক্য বিনিময় হয়। এক পর্যায়ে রাজু বাবুর দিকে তেড়ে যান। দু’জন একে অপরের উপর চড়াও হন। এ সময় ফোবানার হোস্ট কমিটির চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন ভূঁইয়া দু’জনকে শান্ত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

এ বিষয়ে প্রত্যক্ষদর্শী নিজাম উদ্দিন বলেন, ‘ফোবানা অনুষ্ঠানের শেষে নবান্ন রেস্টুরেন্টে বাবু ও রাজুর মধ্যে বাকবিতণ্ডার ঘটনা ঘটেছে।’

এ সময় মারামারি না হলেও উচ্চ বাক্য বিনিময় ও ঘটনা হাতাহাতির পর্যায়েও চলে যাওয়ার উপক্রম হয়। পরে জসিম উদ্দিন ভূঁইয়া তাদের বুঝিয়ে ঘটনার মিমাংসা করেন। তবে এই ঘটনা স্বীকার করেন হোস্ট কমিটির চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন ভূঁইয়া ও বিভক্ত ফোবানার ডিরেক্টর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর শারাফাত হোসেন বাবু।

এ বিষয়ে জসিম উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ‘এ ধরনের কোন কিছুই ঘটে নি। আমরা অনেক সুন্দরভাবে ফোবানা সম্মেলন সম্পন্ন করেছি। একটি মহল ফোবানা সম্মেলনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চক্রান্ত চালাচ্ছে।’

জসিম উদ্দিনের মত বিষয়টি অস্বীকার করেন শারাফাত হোসেন বাবুও।

তিনি বলেন, ‘আমাদের মধ্যে কোন সমস্যা হয় নি। সুন্দরভাবে ফোবানা সম্মেলন শেষ হয়েছে।’

তবে শাহাদাত হোসেন রাজু বলেন, ‘ফোবানা সম্মেলনে আমি সাত জন শিল্পীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। যারা সম্মেলনে যোগ দিয়েছে। তবে সেখানে আমাকে যথার্থ সন্মান দেখানো হয় নি। আর এর কারণ জানতে চাইলে বাবুর সাথে আমার তর্কাতর্কি হয়।’

এ দিকে, গত বছরও আর্থিক লেনদেনকে কেন্দ্র করে ওয়াশিংটন ডিসিতে অনুষ্ঠিত ফোবানা সম্মেলনেও দ্বন্দ্ব লাগে শারাফাত হোসেন বাবু ও কাজী আযম নামে ফোবানার এক পদস্থ কর্তার সাথে। সেই ঘটনা গড়ায় চড়-থাপ্পড় পর্যন্তও। যার ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। আর এই নিয়ে উঠে সমালোচনার ঝড়।

প্রসঙ্গত, ‘অদম্য বাংলাদেশে অবাক বিশ্ব’ স্লোগানকে সামনে রেখে ১৯৮৭ সালে ওয়াশিংটন ডিসিতে বিশ্ব ব্যাংকের একটি ছোট অডিটরিয়ামে অত্যন্ত ছোট পরিসরে যাত্রা শুরু করে উত্তর আমেরিকার প্রবাসীদের সবচেয়ে বড় মিলনমেলা ফোবানা। মূলত প্রবাসে বাঙালিদের ঐক্যবদ্ধ করতে এবং বাংলাদেশের ইতিহাস, শিল্প, সংস্কৃতির ঐতিহ্য তুলে ধরতে আয়োজিত হয় এ সম্মেলন। তবে সম্প্রতি নিজেদের মধ্যে কোন্দলে জড়িয়ে একটি থেকে তিন ফোবানা হয়েছে। গুঞ্জন আছে, এই তিনটি অংশকে ফের বিভক্তির চেষ্টা করছেন অনেকে।