মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

শিরোনাম

বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ বাংলাদেশ প্রদর্শনীতে হুয়াওয়ে

রবিবার, সেপ্টেম্বর ১০, ২০২৩

প্রিন্ট করুন

ঢাকা: দ্য বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ ইন বাংলাদেশ এক্সিবিশনে ঢাকার পূর্বাচলের বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী প্রদর্শনী কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। শুক্রবার (৮ সেপ্টেম্বর) থেকে শুরু হওয়া এই আয়জনটি দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতামূলক মনোভাব তুলে ধরতে ও বিভিন্ন উদ্ভাবনী প্রযুক্তি প্রদর্শনের মাধ্যমে ডিজিটালাইজেশনকে ত্বরান্বিত করতে একটি প্ল্যাটফর্ম হিসাবে কাজ করবে।

বাংলাদেশে অবস্থিত চীন দূতাবাস, বাংলাদেশ চায়না চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (বিসিসিআই) ও চাইনিজ এন্টারপ্রাইজেস অ্যাসোসিয়েশন ইন বাংলাদেশের (সিইএবি) সহযোগিতায় তিন দিনের প্রদর্শনীতে চীন ও বাংলাদেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, অবকাঠামো, টেক্সটাইল, বাণিজ্য ও বিনিয়োগভিত্তিক শীর্ষ প্রতিষ্ঠানগুলো অংশ নিচ্ছে।

হুয়াওয়ে এই আয়োজনে নিজের প্যাভিলিয়ন সাজিয়েছে উন্নত প্রযুক্তি ও পণ্যের একটি বৈচিত্র্যময় পোর্টফোলিও নিয়ে; যার মধ্যে রয়েছে ক্লাউড টেকনোলজি, ডিজিটাল পাওয়ার (সোলার পাওয়ার ইনভার্টার), টেলিকম নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি যেমন ফাইভজি, ফাইভ পয়েন্ট ফাইভ জি। পাশাপাশি, রয়েছে স্মার্ট ক্লাসরুম, স্মার্ট ট্রান্সপোর্টেশন, স্মার্ট পোর্ট ও স্মার্ট সিটিসহ আরো দারুণ কিছু।

হুয়াওয়ের অংশগ্রহণ বিষয়ে এর দক্ষিণ এশিয়ার বোর্ড মেম্বার ও পাবলিক অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড কমিউনিকেশনস বিভাগের পরিচালক জেসন লি বলেন, ‘আইসিটি খাতে বাংলাদেশের যে অগ্রগতি হয়েছে, তার একজন সদস্য হিসেবে হুয়াওয়ে এই প্রদর্শনীতে তার যুগান্তকারী সমাধানগুলি প্রদর্শন করতে যাচ্ছে৷ আমাদের স্মার্ট বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নে বরাবরের মতই একটি বিশ্বস্ত সহযোগী হয়ে থাকতে চাই। টেলিকম নেটওয়ার্ক, ডিজিটাল পাওয়ার, ক্লাউড ও এন্টারপ্রাইজ খাতের জন্য আমাদের পরিষেবা ও সমাধানগুলির মাধ্যমে আমরা প্রতিটি ব্যক্তি, বাড়ি ও প্রতিষ্ঠানগুলোকে ডিজিটাল সেবা দিতে আমরা সব সময় তৈরি; যাতে আমরা একটি পুরোপুরি সংযুক্ত ও স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরি করে তুলতে পারি।’

তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশে বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ ২০২৩ প্রদর্শনী চীন ও বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠান ও স্টেকহোল্ডারদের মধ্যে সহযোগিতা আরো বৃদ্ধি করবে এবং ডিজিটালাইজেশনকে আলিঙ্গন করতে আমাদের সকলকে একটি সার্বজনীন ধারণা দিবে।’

প্রদর্শনীতে দুইটি বিশেষ সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে; যেখানে চীনের বিনিয়োগকারীদের সমস্যা, সফলতা, সম্ভাবনা ও আকাঙ্খার বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হবে। তিন দিনে জব ফেয়ারেরও ব্যবস্থা রয়েছে। আগ্রহীরা বিভিন্ন প্যাভিলিয়নে তাদের সিভি জমা দিতে পারবেন।