সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪

শিরোনাম

বৈধ সরকার প্রতিষ্ঠায় নয়া করে নির্বাচন ও শেখ হাসিনার পদত্যাগ দাবি বিএনপির

সোমবার, জানুয়ারী ৮, ২০২৪

প্রিন্ট করুন

ঢাকা: জনগণ একতরফাভাবে রোববারের (৭ জানুয়ারি) ভোট প্রত্যাখ্যান করেছে উল্লেখ করে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাতিল ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পদত্যাগ দাবি করেছে বিএনপি।

সোমবার (৮ জানুয়ারি) গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বৈধ ও জবাবদিহিমূলক সরকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে নির্দলীয় নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে পুনরায় নির্বাচনের দাবি পুনর্ব্যক্ত করা হয়। তাদের দাবি আদায়ে জনসমর্থন আদায়ে মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারি) ও বুধবার (১০ জানুয়ারি) দুই দিনের গণসংযোগ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান বলেন, ‘দেশের জনগণ একতরফা ও স্বতঃস্ফূর্তভাবে রোববারের (৭ জানুয়ারি) নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছে। নির্বাচন বর্জনের আহ্বান জানানো ৬৩ দলের পক্ষ থেকে আমরা দেশের জনগণকে অভিনন্দন জানাই।’

তিনি আরো বলেন, ‘নানা হুমকি ও ভয়ভীতি সত্বেও সরকার ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে নিয়ে যেতে ব্যর্থ হয়েছে।’

আবদুল মঈন খান বলেন, ‘৭ জানুয়ারি ভোট গ্রহণ ও কোন নির্বাচন হয়নি। যা ঘটেছে, তা ভোট ডাকাতি ও ভোট কারচুপি।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘তাদের দল জনগণের ভোটে নির্বাচিত ও তাদের কাছে জবাবদিহিমূলক সরকার প্রতিষ্ঠা করতে চায়। তার জন্য একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন প্রয়োজন, যা রোব (৭ জানুয়ারি) হয়নি। তাই, জনগণ এই নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছে। সকলে বলছেন যে, ভোটার উপস্থিতি (ইসি) দেখিয়েছে, তা ভুয়া।’

তিনি বলেন, ‘তাই, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে থাকা বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দ্রুত ৭ জানুয়ারির ডামি নির্বাচন বাতিল, শেখ হাসিনার পদত্যাগ ও জাতীয় নির্বাচনের জন্য নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার গঠনের দাবি জানিয়েছে।’

নজরুল ইসলাম খান আরো বলেন, ‘রাষ্ট্রের ওপর জনগণের মালিকানা পুনরুদ্ধার করতে হবে। একই সাথে জোরপূর্বক গুম, হত্যা ও ভুতুড়ে মামলা বন্ধ করতে হবে এবং জনগণকে তার দমনমূলক শাসন থেকে রক্ষা করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘এগুলো এখন জনগণের দাবি। আমরা জনগণকে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানাই যে, তারা নানা চাপ ও প্রলোভনের মুখে স্বার্থ ত্যাগ করেছেন এবং বিপুল সংখ্যক ভোটারকে ভোট কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার জন্য সরকারের অশুভ প্রচেষ্টা ব্যর্থ করেছেন।’