রবিবার, ২৬ মে ২০২৪

শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে হারের ভয় বাইডেন শিবিরে

বুধবার, অক্টোবর ২৬, ২০২২

প্রিন্ট করুন

ওয়াশিংটন ডিসি, যুক্তরাষ্ট্র: আগামী ৮ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে মধ্যবর্তী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওযার কথা রয়েছে। নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে প্রচারণা শুরু করেছে দলগুলো। তবে এ নির্বাচন নিয়ে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের হোয়াইট হাউস খুব একটা আশা করতে পারছে না। ডেমোক্র্যাট শিবিরে পরাজয়ের ভয়-আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। খবর রয়টার্সের।

মার্কিন সংবিধান ও সংসদীয় ব্যবস্থার গুরুত্বপূর্ণ অংশ মধ্যবর্তী নির্বাচন। ক্ষমতা ধরে রাখার পাশাপাশি জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের অন্যতম মাধ্যমও এ নির্বাচন।

নির্বাচন ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠতে শুরু করেছে রাজনীতির মাঠ। সময় যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই যেন নিজেদের প্রমাণে ব্যস্ত হয়ে পড়ছে ক্ষমতাসীন ডেমোক্র্যাট ও বিরোধী রিপাবলিকান শিবির। কংগ্রেসের দুই কক্ষেই নিজেদের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে জোর প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন ডেমোক্র্যাটরা। তবে জোর প্রচারণা চালালেও নির্বাচনে জয়ের বিষয়ে তেমন আশা দেখছে না বাইডেন শিবির। ডেমোক্র্যাটদের উদ্বেগ, মধ্যবর্তী নির্বাচনে কংগ্রেস তথা পার্লামেন্টের উভয় কক্ষের নিয়ন্ত্রণ হারাতে পারে তারা।

অন্তত সাম্প্রতিক জনমত জরিপ সে কথাই বলছে। কিছু দিন আগেও যে সব ডেমোক্র্যাট জরিপে সন্তোষজনকভাবে এগিয়ে ছিলেন, তারাই বর্তমানে তলানিতে। সিনেট নির্বাচনে উভয় দলের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি যুদ্ধ হবে বলেই মনে করা হচ্ছিল। কিন্তু ভোটের পাল্লা এ মুহূর্তে রিপাবলিকানদের দিকেই।

বাইডেন ও ডেমোক্র্যাটরা আশা করছিলেন, অন্তত হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভস ধরে রাখতে পারবেন তারা। কিন্তু ফাইভথার্টিএইটসহ প্রায় সব জনমত জরিপ রিপাবলিকানদেরই এগিয়ে রাখছে।

অন্য দিকে, বিশ্লেষকরাও বলছেন, নির্বাচনে প্রতিনিধি পরিষদের নিয়ন্ত্রণ হারাতে পারেন ক্ষমতাসীনরা। সে ক্ষেত্রে মেয়াদকালের বাকি দুই বছর বাইডেন প্রশাসনের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেন রিপাবলিকানরা।

সংবিধান মতে, মার্কিন কংগ্রেসের দুই কক্ষের মধ্যে ৪৩৫ আসনের প্রতিনিধি পরিষদের সব কটিতে ও ১০০ আসনের সিনেটের এক-তৃতীয়াংশে হবে মধ্যবর্তী নির্বাচনের ভোট। ফলে দুই কক্ষেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা ধরে থাকতে মরিয়া ডেমোক্র্যাটরা। অন্য দিকে, উভয় কক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে আশাবাদী বিরোধী রিপাবলিকান শিবিরও।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, অর্থনৈতিক মন্দা, অস্বাভাবিক মূল্যস্ফীতি, বন্দুক সহিংসতা, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে কিয়েভকে প্রত্যক্ষ সমর্থন, অভিবাসী সংকটসহ নানা কারণে চাপের মুখে বাইডেন প্রশাসন। আর এ কারণেই এবারের মধ্যবর্তী নির্বাচনে প্রতিনিধি পরিষদের নিয়ন্ত্রণে হারাতে পারেন ডেমোক্র্যাটরা। আর সেটি হলে, আগামী দুই বছর সরকারের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে বাইডেনের জন্য বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেন রিপাবলিকানরা।

একজন বিশ্লেষক বলেন, ‘মার্কিন কংগ্রেসে ডেমোক্র্যাটরা সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও ব্যবধান খুবই সামান্য। ন্যান্সি পেলোসির নেতৃত্বে প্রতিনিধি পরিষদ ডেমোক্র্যাটদের নিয়ন্ত্রণে থাকলেও সেখানে খুব একটা ভাল অবস্থানে নেই তারা। অন্য দিকে, সিনেটও সমানভাগে বিভক্ত। কেবল ভাইস প্রেসিডেন্ট কামালা হ্যারিস তার নির্বাহী ক্ষমতায় ভোট দেয়ায়, যে কোন প্রস্তাব পাসে সেখানে উতরে যাচ্ছেন ক্ষমতাসীনরা। আমরা জানি না, মধ্যবর্তী নির্বাচনের ফল কোন দিকে যাবে। তবে ডেমোক্র্যাটরা যে চাপে আছেন, তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই।’

নির্বাচনের ফল যে দিকেই যাক না কেন, মার্কিন কংগ্রেসের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে ডেমোক্র্যাটরা মরিয়া হলেও মেয়াদকালের আগামী দুই বছর বাইডেন প্রশাসনের জন্য অত্যন্ত কঠিন সময় অপেক্ষা করছে বলে মত সংশ্লিষ্টদের।