রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ি বিক্রি জুলাইয়ে টানা ষষ্ঠ মাসে কমেছে

রবিবার, আগস্ট ২১, ২০২২

প্রিন্ট করুন

যুক্তরাষ্ট্রের বিদ্যমান বাড়ি বিক্রির হার জুলাই মাসে তীব্রভাবে হ্রাস পেয়েছে। বুধবার (১৭ আগস্ট) প্রকাশিত ইন্ডাস্ট্রি ডেটা থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

ন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অফ রিয়েলটরস (এনএআর) অনুসারে, টানা ষষ্ঠ মাসিক পতন ঘটেছে, কারণ বাড়ির দাম কিছুটা ধীর গতিতে বাড়তে থাকে।

মহামারী চলাকালীন হাউজিং মার্কেট বেড়ে গিয়েছিল। কারণ আমেরিকানরা, সঞ্চয় নিয়ে, দর কষাকষি বন্ধক হারের সুবিধা নিয়েছিল বাড়িগুলি ছিনিয়ে নিতে। সেক্টরটি বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির একটি বিশাল অংশ, কারণ এটি যন্ত্রপাতি, আসবাবপত্র ও বাড়ির উন্নতির উপকরণসহ অন্যান্য বিভাগে ব্যয় করে।

উচ্চ চাহিদা প্রাক-মহামারী আবাসন ঘাটতিকে বাড়িয়ে তুলেছে, দাম বাড়াচ্ছে। কিন্তু ফেডারেল রিজার্ভ মুদ্রাস্ফীতি মোকাবেলায় আক্রমণাত্মকভাবে সুদের হার বাড়িয়েছে, এতে বিক্রির গতিতে ধাক্কা খেয়েছে।

এনএআর জানিয়েছে, বর্তমান বাড়ি বিক্রি জুনের তুলনায় পাঁচ দশমিক নয় শতাংশ কমেছে; যা বার্ষিক হারে চার দশমিক ৮১ মিলিয়ন ইউনিট। এটি ছিল অর্থনীতিবিদরা যা অনুমান করেছিলেন, তার চেয়ে কম এবং ২০১৫ এর নভেম্বর থেকে সর্বনিম্ন, যদি ২০২০ সালের মহামারী মন্দাকে বাদ দেয়া হয়।

এনএআরের প্রধান অর্থনীতিবিদ লরেন্স ইউন গণ মাধ্যমকে বলেছেন, ‘বিক্রি হ্রাস দেশজুড়ে অনেক বেশি। মিডওয়েস্টসহ দেশের চারটি অঞ্চলে হ্রাস পাচ্ছে।’

লরেন্স ইউন বলেন, ‘প্রথম বারের মত গত মে মাসে চার লাখ ডলার টপকে যাওয়ার পর, জুন থেকে মাঝারি বিক্রির দাম কিছুটা কমেছে। প্রাক-মহামারীতে দাম বছরে প্রায় পাঁচ শতাংশ বেড়ে যাচ্ছিল।’

‘মাত্র তিন দশমিক তিন মাসের সরবরাহে অবিক্রীত বাড়ির স্টকসহ এটি এখনো একটি শক্ত বাজার হিসাবে বিবেচিত হয়,’ তালিকা মূল্যের উপরে ৩৯ শতাংশ বাড়ি বিক্রি হয়েছে।’ তিনি যোগ করেন।

ঋণের খরচ প্রায় ছয় শতাংশে বেড়ে যাওয়ায় ক্রয় কমে গেছে। কিন্তু লরেন্স ইউন বলেন, ‘এটা সম্ভব যে হার, যা পাঁচ শতাংশের কাছাকাছি নেমে এসেছে, তা হয়ত শীর্ষে উঠে যেতে পারে এবং বিক্রি স্থিতিশীল হতে পারে… বাড়ির ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতার একটি বাড়তি উৎসাহ দিয়ে।’

অন্যান্য তথ্য দেখায় যে, বিল্ডাররা পিছিয়ে আসতে শুরু করেছে ও নতুন বাড়ি নির্মাণের গতি ধীর হয়ে গেছে এবং লরেন্স ইউন বলেছেন যে, তিনি উদ্বিগ্ন যে, যদি বন্ধকী হার আরো সহজ হয়, বাজারে নতুন ক্রেতাদের ভিড় আবাসন ঘাটতিকে আরো খারাপ করতে পারে।

বিদ্যমান বাড়ি বিক্রি রিয়েল এস্টেট বাজারের ৯০ শতাংশ তৈরি করে। সরকার মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) জুলাই মাসের নতুন বাড়ি বিক্রির তথ্য প্রকাশ করবে।