রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

শিরোনাম

সব শ্রেণির মানুষের জন্য ঢাকাকে বাসযোগ্য ও টেকসই করতে হবে

শনিবার, অক্টোবর ২৯, ২০২২

প্রিন্ট করুন

ঢাকা: ‘বসবাসরত সব শ্রেণির মানুষের জন্য ঢাকাকে বাসযোগ্য ও টেকসই করতে হবে। নাগরিক অধিকারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে সকলকে মিলেমিশে কাজ করতে হবে। সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণে রাজধানী দৃষ্টিনন্দন, নিরাপদ বাসযোগ্য ও টেকসই শহর হবে।’

শনিবার (২৯ অক্টোবর) বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব প্ল্যানার্সে বিশ্ব নগর পরিকল্পনা দিবস ২০২২ উপলক্ষে আয়োজিত জনঘনত্ব, বাসযোগ্যতা ও টেকসই উন্নয়ন শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এসব কথা বলেন।

এতে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী আরো বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার হল আমার গ্রাম আমার শহর৷ এর অধীনে সড়ক যোগাযোগ, ইন্টারনেট-টেলি যোগাযোগ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য কেন্দ্র, সুপেয় পানি ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার বিষয়গুলো সন্নিবেশিত হয়েছে৷ একটি উন্নত জীবন যাত্রার জন্য যে ব্যবস্থাপনা মানুষের প্রয়োজন তার সবই রয়েছে৷ গ্রামগুলোতে শহরের সুবিধা নিশ্চিত হলে শহর মুখী মানুষের চাপ কমবে।’

রাজধানীকে বাসযোগ্য করার জন্য ডিটেইল এরিয়া প্লান (ড্যাপ) প্রনয়ণ করেছে সরকার৷ ড্যাপের বাস্তবায়ন রাজধানীকে সুন্দর ও বাসযোগ্য করবে। এটি সম্মিলিতভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে৷ তাহলে ঢাকাকে পরিকল্পিতভাবে গড়ে তোলা সম্ভব হবে বলে মন্ত্রী মন্তব্য করেন৷

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী আরো বলেন, ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে৷ কিন্তু এগুলো বললে কিছু মানুষ সহ্য করতে পারেন না৷ ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর দেশের উন্নয়ন থেমে যায়৷ দেশ দরিদ্র থেকে দরিদ্রতর হয়৷ এরপর শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পরে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের পাশাপাশি শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ ব্যবস্থা, কৃষি , শিল্প -কারখানাতে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে৷ এছাড়াও জিডিপির প্রবৃদ্ধি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও আর্থ-সামাজিকসহ সব ক্ষেত্রে দেশ অনেক এগিয়েছে৷’

গোল টেবিল বৈঠকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘ঢাকাকে টেকসই করতে হলে দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে৷ দখলকৃত খালের সীমানা চিহ্নিত করা হচ্ছে৷ সিএস দাগে খালের সীমানা নির্ধারণ করতে হবে৷’

সেন্টার ফর আরবান স্টাডিজের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘ঢাকা বা নগরগুলোকে বাসযোগ্য করে গড়ে তোলার জন্য ন্যাশনাল কমিটি গঠন করতে হবে৷’ বিকেন্দ্রীকরণ জরুরি বলেও তিনি মতামত দেন৷

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য ও পরিকল্পনা অনুষদের ডিন ইশরাত ইসলাম বলেন, ‘ঢাকা শহরকে বাসযোগ্য করার জন্য পার্ক বা উন্মুক্ত স্থানের ব্যবস্থা নিতে হবে৷’

বিশেষজ্ঞ বক্তারা ঢাকা শহরকে বাসযোগ্য ও টেকসই করে গড়ে তোমার আহবান জানান৷ আমার গ্রাম আমার শহর, বিকেন্দ্রীকরণের এবং ড্যাপ বাস্তবায়নের জন্য সরকারিভাবে উদ্যোগ নিতে হবে বলে তারা উল্লেখ করেন৷

বৈঠকে দৈনিক প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হক, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের সভাপতি ফজলে রেজা সুমন উপস্থিত ছিলেন৷