শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

শিরোনাম

সান ফ্রান্সিসকোর এক কবুতরতাড়ুয়া বাজপাখি

বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০২২

প্রিন্ট করুন

সিবিএন টিভি ইউএসএ ডেস্ক: ফসল রক্ষা করতে কাকতাড়ুয়া ব্যবহারের কথা তো বহু শুনেছেন, এবার শুনুন এক কবুতরতাড়ুয়া বাজপাখির কথা। যুক্তরাষ্ট্রের সানফ্রান্সিসকোর এক মেট্রো স্টেশনের যাত্রীদের বাঁচিয়েছে এ পাখি!

ক্যালিফোর্নিয়ার এল চেরিতোর ডেল নর্টে মেট্রো স্টেশনে এ কিছু দিন আগেও যাত্রীরা গিয়ে বসার জায়গা পেতে না। না, আসলে জায়গা পেত, তবে সেই জায়গায় বসা যেতে না। প্রায় সব জায়গাতেই পড়ে থাকত বিষ্ঠা। কবুতরের বিষ্ঠা!

কবুতর মানেই শান্তির প্রতীক। অথচ সান ফ্রান্সিসকো মেট্রো কর্তৃপক্ষের কাছে কবুতরের বিষ্ঠা নিয়ে এত অভিযোগ আসতে শুরু করলে যে, কর্তৃপক্ষ বাধ্য হলে অশান্তির কারণ হওয়া কবুতরদের বিরুদ্ধে কঠোর হতে। ভাড়া করা হলে এক কবুতরতাড়ুয়া!

কবুতরের উৎপাত থেকে বাঁচতে প্যাক-ম্যান নামের এ বাজপাখিকে ভাড়া করেছে মেট্রো কর্তৃপক্ষ। তাই সপ্তাহে তিন দিন এল চেরিতো ডেল নর্টে মেট্রো স্টেশন চষে বেড়ায় পাঁচ বছর বয়সি এ বাজপাখি। যেখানেই কবুতর, সেখানেই ছুটে যায় প্যাক-ম্যান। তাকে দেখলে কবুতররা প্রাণ বাঁচাতে এত ব্যস্ত হয়ে পড়ে যে, বিষ্ঠাত্যাগের আর সময়ই পায় না!

প্যাক-ম্যানের মালিকের নাম রিকি অরিটজ। মেট্রো কর্তৃপক্ষ রিকির ফ্যালকন ফোর্স নামের প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি করার কারণেই এল চেরিতো ডেল নর্টে মেট্রো স্টেশনে কবুতরতাড়ুয়ার চাকরিটা পেয়েছে প্যাক-ম্যান। চাকরিতে ইতিমধ্যে বেশ সুনামও কামিয়েছে প্যাক-ম্যান। রিকি বললেন, ‘আমরা কাজ শুরু করার এক সপ্তাহের মধ্যে এখানে কবুতরের সংখ্যা প্রায় অর্ধেকে নেমে আসে। সংখ্যাটা এখন আরো কমছে।’

মুশকিল হল, কবুতর দেখলে ধরে ধরে খেতেও ইচ্ছে করে প্যাক-ম্যানের। এমনকি আশপাশের ঝোঁপের আড়াল থেকে উঁকি দেয়া ইঁদুরগুলোকে ধরে খেতেও মাঝে মাঝে খুব বেপরোয়া হয়ে ওঠে প্যাক-ম্যান। কিন্তু চুক্তিতে বলা আছে, কবুতর বা ইঁদুর খাওয়া যাবে না, তাই এল চেরিতো ডেল নর্টে মেট্রো স্টেশনে ডিউটিতে থাকার সময় প্যাক-ম্যানকে স্ন্যাকস খাওয়ান রিকি অরটিজ।

বেঠানি ক্যাম্পবেল নামের এক যাত্রী জানান, বাজপাখিকে কবুতর তাড়ানোর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে শুনে তিনি মেট্রোয় চড়াই বাদ দিয়েছিলেন। তার মনে হয়েছিল, এর ফলে কাজের কাজ কিছু হবেই না, বরং কবুতরের উৎপাতের সাথে যোগ হবে বাজপাখির উৎপাত। তাই মেট্রো ছেড়ে গাড়িতে চলাচল শুরু করেছিলেন। তবে প্যাক-ম্যানের সুনাম তার কানে পৌঁছাতেও বেশি সময় লাগে নি। তাই গাড়ি আবার গ্যারেজে রেখে মেট্রোয় চড়তে শুরু করেছেন বেঠানি ক্যাম্পবেল।