সোমবার, ২৯ মে ২০২৩

শিরোনাম

২০২২ এর দুর্ঘটনার পর ‘শিগগির’ মহাকাশ ফ্লাইট পুনরায় চালুর আশা ব্লু-অরিজিনের

শনিবার, মার্চ ২৫, ২০২৩

প্রিন্ট করুন

ওয়াশিংটন, যুক্তরাষ্ট্র: জেফ বেজোসের মহাকাশ সংস্থা ব্লু-অরিজিন বলেছে, তারা গত বছরের একটি দুর্ঘটনার তদন্তের উপসংহারের পর ‘শিগগিরই’ রকেট ফ্লাইট পুনরায় চালুর আশা করছে, তবে অবশ্যই যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রকদের এ ফলাফল গ্রহণের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। শুক্রবার (মার্চ) তারা এসব কথা বলে।

কোম্পানির নিউ শেপার্ড সাব অর্বিটাল রকেটগুলো মহাকাশ পর্যটনের উদ্দেশে তৈরি করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্য থেকে লিফটঅফের কিছুক্ষণ পরেই ঘটে যাওয়া ২০২২ সেপ্টেম্বরের দুর্ঘটনার পরে রকেটগুলো গ্রাউন্ডেড করা হয়েছে।

অ্যামাজানের প্রতিষ্ঠাতা কোম্পানির জন্য এটি একটি ধাক্কা, যদিও পর্যবেক্ষকরা এ সত্যটি দ্বারা উৎসাহিত হয়েছিল যে, লোকেরা যদি নভোযানে থাকত, তবে তারা সম্ভবত বেঁচে থাকতে পারত।

ফ্লাইটের রকেটটিতে একটি একক বুস্টার ছিল, যার উপরে ব্লু-অরিজিনের এনএস-২৩ ক্যাপসুলটি বৈজ্ঞানিক সরঞ্জাম বহন করে।

মিশনে রকেটটির আরোহণের সময় একটি অসঙ্গতি ঘটেছিল। এটি একটি প্রযুক্তিগত সমস্যার সম্মুখীন হওয়ায় স্থবির হয়ে পড়েছিল। এরপর ক্যাপসুলটি বুস্টার রকেট থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে প্যারাশুটের মাধ্যমে পৃথিবীতে ফিরে আসে। পরবর্তী নিয়ন্ত্রক ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (এফএএ) তত্ত্বাবধানে একটি তদন্ত পরিচালিত হয়েছিল।

এফএএ শুক্রবার বলেছে, ‘তদন্ত চলমান রয়েছে এবং এটি ‘বর্তমানে কোম্পানির জমা দেয়া দুর্ঘটনার প্রতিবেদন পর্যালোচনা করছে।’

এফএএ বিবৃতিতে বলেছে, ‘তদন্ত বন্ধ করতে ও নতুন শেপার্ড সিস্টেম ফ্লাইটে ফিরে আসার জন্য এফএএ অনুমোদন প্রয়োজন।’

ব্লু অরিজিন বলেছে, ‘এটি শিগগিরই ফ্লাইটে ফিরে আসার প্রত্যাশা করছে।’

সব মিলিয়ে, ২০২১ এর জুলাই থেকে ব্লু-অরিজিন ৩২ জনকে নিয়ে মহাকাশে উড়েছে। জেব বেজোস নিজেই এ প্রথম ফ্লাইটে অংশ নিয়েছিলেন।